একাত্তরের মুক্তিসেনার যুদ্ধ আমি দেখি নাই
তবু মা তোর ধুলোর গন্ধে সংগ্রামের সে স্পর্শ পাই।।
মূহুর্তে তোর গায়ের সবুজ বুড়ে হলেও সূর্য লাল
তিরিশ লক্ষ প্রাণের দামে রক্তে ভেজে তোর কপাল
নির্যাতিতা ফিরছে ঘরে নিখোঁজ তাহার বাপ ও ভাই।।
মাগো যদি জন্ম নিতাম একাত্তরের আগে গো
সন্তানের সে ঋণ শোধাতাম আত্মাহুতির আগে গো
শহীদ হব তোরই বুকে এমন কপাল আমার নাই।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

এই বাংলায় রবীন্দ্রনাথ করেছে বিশ্বজয়
এই বাংলায় নজরুল লেখে বিদ্রোহী ডালাময়
এই বাংলায় বিদ্যাসাগর যুগের সূচনা
সত্যজিতের ‘পথের পাঁচালী’ ইতিহাস রচনা।
এই বাংলায় সালাম রফিক বরকত তোরই ছেলে
ভাষার জন্য বারুদের মুখে এগোয় হেসে খেলে।
সূর্য্য-সন্তানেরা তোরই রত্নগর্ভা তূড়ি
মা মাগো মা…তুই দুঃখ, তুই সুখ,
তুই ধন্য, তুই হাসি, শ্রেষ্ঠতমা প্রিয়মুখ।।
মাগো তোর ছেলে জহির বানালো ‘জীবন থেকে নেয়া’
আলতাফ-গফফর করে গান সময় পালটে দেয়া
তোর মেয়ে ইলা মিত্র রান্নাঘর থেকে বেরিয়ে
হাতে তুলে নেয় মারণাস্ত্র মুক্তি চেতনা নিয়ে।
‘স্বৈরাচারী, তার দেশ ছাড়ি’ বুকে লেখে নূর হোসেন
রবি শংকর তার বাদনে তোর কথা ভেবে কাঁদে।।
জীবনানন্দ আর সুকান্ত তোর প্রেমে কত লেখে
লতিফের গাওয়া একুশের গান মনে দাগ গেছে রেখে
দুইশ বছর পরাধীনতার ব্যারিকেড ভাঙে যারা
তোরই গর্ভের তোরই স্নেহের সূর্য্য-সন্তানেরা।
রণাঙ্গনে হানাদারকে হটায় মুক্তিসেনা
ব্যারিকেড আর কাঁটাতার তাকে রুখতে তো পারবে না।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

ষোলই ডিসেম্বর
তুমি গর্ব আমার, আমার অহঙ্কার
সালাম তোমায়, তোমায় নমস্কার।।
সেদিন যখন জ্বলে ওঠে বাঙালী
নিয়ে আপন পরিচয়
মানব দানব তোমার কাছে
প্রাণ ভিক্ষা চায়
তখন আমার মায়ের আঁচল উড়ে আকাশে
এমন ক্ষণ আমি পাই নাগো আর।।
ইতিহাসের যত রুদ্ধ পাতা
পেরিয়ে তোমায় পেলাম
প্রতি পাতায় রক্তে লেখা
শত শহীদের নাম
এলে তুমি আলো হয়ে মোছাতে অন্ধকার
এমন আলো বাধা মানে নাগো আর।।

[গানটি লিখেছেন এস এম আবু বকর ও সুর করেছেন রবিউল হুসেইন]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

মোদের গরব, মোদের আশা, আ-মরি বাংলা ভাষা।
(মাগো) তোমার কোলে, তোমার বোলে, কতই শান্তি ভালোবাসা।।
কি যাদু বাংলা গানে, গান গেয়ে দাঁড় মাঝি টানে,
গেয়ে গান নাচে বাউল, গান গেয়ে ধান কাটে চাষা।।
বিদ্যাপতি, চণ্ডী, গোবিন্‌, হেম, মধু, বঙ্কিম, নবীন-
ঐ ফুলেরই মধুর রসে বাঁধলো সুখে মধুর বাসা।।
বাজিয়ে রবি তোমার বীণে, আনলো মালা জগৎ জিনে।
তোমার চরণ-তীর্থে (মাগো) আজি জগৎ করে যাওয়া-আসা।।
ঐ ভাষাতেই নিতাই গোরা, আনল দেশে ভক্তি-ধারা,
আছে কৈ এমন ভাষা এমন দুঃখ-শ্রান্তি-নাশা।।
ঐ ভাষাতেই প্রথম বোলে, ডাকনু মায়ে ‘মা, মা’ বলে;
ঐ ভাষাতেই বলবো হরি, সাঙ্গ হলে কাঁদা হাসা।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

এই বাংলার মাটিতে
(মাগো) জন্ম আমায় দিও।
এই আকাশ, নদী, পাহাড়
আমার বড় প্রিয়।।
কোথায় বলো এতো স্বপন
হাওয়াতে ভাসে।
কোথায় বলো এতো বকুল
বসন্তে হাসে।
শরৎ আকাশ কোথায় বলো
এমন রমণীয়।।
বার মাসে তের পাবণ
বলো কোথায় আছে।
মেঘের খটা দেখে এমন
ময়ূর কোথায় নাচে।
কোথায় বলো এতো মায়া
ধানের ক্ষেতে দোলে।
কোথায় বলো হাসে শিশু
সুখে মায়ের কোলে।
কোথায় বলো পল্লী বধূ
এমন কোমনীয়।।

[গানটি গেয়েছেন নির্মলা মিশ্র]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

হায় রে আমার মন মাতানো দেশ,
হায় রে আমার সোনা ফলা মাটি।
রূপ দেখে তোর কেন আমার নয়ন ভরে না
তোরে এতো ভালোবাসি তবু পরান ভরে না।।
যখন তোর ওই গাঁয়ের ঘরে
ঘুঘু ডাকা নিঝুম কোনো দুপুরে।
হংস মিথুন ভেসে বেড়ায়
শাপলা ফোটা তলতলে ওই পুকুরে।
নয়ন পাখি দিশা হারায়
প্রজাপতির পাখায় হারায়
তাদের কথা মনে ধরে না।।
যখন তোর ওই আকাশ নীলে
পাল তুলে যায়, সাত সাগরের পশরা।
নদীর বুকে হাতছানি দেয়,
লক্ষ ছেলে, মানিক-জ্বালা ইশারা।
হায় রে আমার বুকের মাঝে,
হাজার তারের বীণা বাজে
অবাক চোখে, পলক পড়ে না।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

বাংলাদেশের শিশু মোরা বাংলা ভালোবাসি
দেশের ডাকে মরতে পারি, দেশের ডাকে আসি।
সেই তো আমার বাংলাদেশ, আমাদেরই বাংলাদেশ।।
দেশটাকে ভাই গড়তে হলে করতে হবে আগে,
শিক্ষা শুধু জীবন গড়ে, শিক্ষাতে প্রাণ যাবে।
তাই তো রে ভাই সবাই মিলে পাঠশালাতে আসি।।
সত্য ন্যায়ের গড়তে জীবন শিক্ষাই হোক হাতিয়ার
ধন্য সেই জন এই ভুবনে শিক্ষা আছে যার।
সবার প্রাণে বাজবে এ গান যদি দেশকে ভালোবাসি।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

কেউবা বলে ধানের দেশ
কেউবা বলে গানের দেশ
আমরা বলি প্রাণের দেশ…বাংলাদেশ।
লক্ষ কোটি প্রাণের দেশ…বাংলাদেশ।।
বাংলাদেশকে ভালোবেসে
আমাদেরই ভাই-বোনেরা
প্রাণ দিয়েছে হেসে হেসে
সেই লক্ষ জীবন দানের দেশ…বাংলাদেশ।।
সেই শহীদের স্মৃতি ঘেরা
আমাদেরই দেশটা হবে
সকল দেশের চেয়ে সেরা
সেই নতুন আহবানের দেশ…বাংলাদেশ।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

জন্ম আমার বাংলাদেশে
এই তো আমার গর্ব।
মরতে যদি হয় আমাকে
দেশের জন্য মরব।।
একাত্তরে প্রাণ দিয়েছে
আমার মা-বোন-ভাই,
রক্তেরই দাম দিতে মোরা
শপথ নিলাম তাই।
আসুক না আজ শত বাধা
জান দিয়ে ভাই লড়ব।।
এই দেশেরই শ্যামল সুধায়
জুড়ায় আমার প্রাণ,
উদাস করে দেয় আমাকে
রাখালীয়ার গান।
শপথ নিলাম সবাই মিলে
সোনারই দেশ গড়ব।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

বঙ্গ আমার জননী আমার
ধাত্রী আমার, আমার দেশ
কেন গো মা তোর শুষ্ক নয়ন?
কেন গো মা তোর রুক্ষ কেশ?
কেন গো মা তোর ধূলায় আসন?
কেন গো মা তোর মলিন বেশ?
শত কোটি সন্তান যার
ডাকে উপচে আমার দেশ।
কিসের দুঃখ, কিসের দৈন্য,
কিসের লজ্জা, কিসের ক্লেশ?
শত কোটি মিলিত কন্ঠে
ডাকে যখন আমার দেশ।।
উদিল যেখানে বৌদ্ধ আত্মা
মুক্ত করিতে মোক্ষ দ্বার,
আজিও জুড়িয়া অর্ধ জগৎ
ভক্তি প্রণতঃ চরণে যার।
অশোক যাহার কীর্তি ছায়িল
গান্ধার হতে জলধি শেষ
তুই কিনা মা গো তাদের জননী?
তুই কিনা মা গো তাদের দেশ।।
একদা যাহার বিজয় সেনানী
হেলায় লঙ্কা করিল জয়
একদা যাহার অর্ণবপোত
ভ্রমিল ভারত সাগরময়।
সন্তান যার ত্বিব্বততীর
জাপানে গঠিল উপনীদেশ
তার কি না ধুলায় আসন,
তার কি না এই চ্ছিন বেশ?
উদিল যেখানে মোরজ মন্ত্রে
নিমাই কন্ঠে মধুর ও তান
ন্যায়ের বিধান দিল রঘুমনি,
চন্ডীদাস ও গাইল গান
যুদ্ধ করিল প্রতাপাদিত্য
তুই কিনা সেই ধন্য দেশ,
ধন্য আমরা যদি এ শিরায়
রহে যদি তাদের রক্ত লেশ।।
যদিও মা তোর দিব্য আলোকে
ঘিরে আছে আজ আঁধার ঘোর
কেটে যাবে মেঘ নবীন গরিমা
মাতিবে আবার ললাটে তোর।
আমরা ঘুচাবো মা তোর কালিমা
মানুষ আমরা, নহি তো মেষ
দেবী আমার, সাধনা আমার
স্বর্গ আমার, আমার দেশ।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

রাঙা মাটির রঙে চোখ জুড়ালো
সাম্পান মাঝির গানে মন ভরালো
রুপের মধু সুরের যাদু কোন সে দেশে
মায়াবতী মধুমতি বাংলাদেশে।।
ও সেই রোদের আলো শিশির ছুঁয়ে
এ কোন খুশির কথা যায় শুনিয়ে
একটু দোলা দিয়ে এই বাতাসে
মগ্ন করে রাখে কার আবেশে
রুপের মধু সুরের যাদু কোন সে দেশে
মায়াবতী মধুমতি বাংলাদেশে।।
ও সেই ফুলের হাসি মাঠের বুকে
সবুজ আশায় কেন পরান মাখে
একটু অনুরাগে লাল পলাশে
অন্ধ করে রাখে কার পরশে
রুপের মধু সুরের যাদু কোন সে দেশে
মায়াবতী মধুমতি বাংলাদেশে।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

বাংলার হিন্দু, বাংলার বৌদ্ধ,
বাংলার খ্রীষ্টান, বাংলার মুসলমান,
আমরা সবাই বাঙালী ।।
তিতুমীর, ঈসা খাঁ, সিরাজ
সন্তান এই বাংলাদেশের।
ক্ষুদিরাম, সূর্যসেন, নেতাজী
সন্তান এই বাংলাদেশের।
এই বাংলার কথা বলতে গিয়ে
বিশ্বটাকে কাঁপিয়ে দিল কার সে কন্ঠস্বর,
মুজিবর, সে যে মুজিবর,
‘জয় বাংলা’ বল রে ভাই।।
ছয়টি ছেলে বাংলাভাষার চরণে দিল প্রাণ,
তাঁরা বলে গেল ভাষাই ধর্ম,
ভাষাই মোদের মান।
মাইকেল, বিশ্বকবি, নজরুল
সন্তান এই বাংলাদেশের।
কায়কোবাদ, বিবেকানন্দ, অরবিন্দ
সন্তান এই বাংলাদেশের।
এই বাংলার কথা বলতে গিয়ে
বিশ্বটাকে কাঁপিয়ে দিল কার সে কন্ঠস্বর,
মুজিবর, সে যে মুজিবর,
‘জয় বাংলা’ বল রে ভাই।।

[গানটি লিখেছেন গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার ও সুর করেছেন শ্যামল গুপ্ত]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

আমায় গেঁথে দাওনা মাগো
একটা পলাশ ফুলের মালা
আমি জনম জনম রাখব ধরে
ভাই হারানোর জ্বালা।।
আসি বলে আমায় ফেলে
সেই যে গেল ভাই
তিন ভুবনের কোথায় গেলে
ভাইয়ের দেখা পাই
দেবো তারই সমাধিতে আমি
তোমার হাতের মালা।।
তারই শোকে কোকিল ডাকে
ফোটে বনের ফুল
ফুল পাবনের মধুর তিথি
কেঁদে হয় আকুল
আজও তারই স্মরণ করে সবাই
সাজাই ফুলের ডালা।।

{গানটি না পড়তে পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

রক্ত দিয়ে নাম লিখেছি
বাংলাদেশের নাম।
মুক্তি ছাড়া তুচ্ছ মোদের
এই জীবনের দাম।।
সংকটে আর সংঘাতে
আমরা চলি সব একসাথে।
জীবন মরণ করে সব
লড়ছি অবিরাম।।
রক্ত যখন দিয়েছি আরও রক্ত দেব,
রক্তের প্রতিশোধ মোরা নেবই নেব,
ঘরে ঘরে আজ দূর্গ গড়েছি
বাংলার সন্তান,
সইবো না মোরা, সইবো না আর
জীবনের অপমান।।
জীবন জয়ের গৌরবে,
নতুন দিনের সৌরভে
মুক্ত স্বাধীন জীবন গড়া
মোদের মনস্কাম।।

[গানটি লিখেছেন আবুল কাশেম সন্দীপ ও সুর করেছেন সুজেয় শ্যাম]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

মুক্তির মন্দির সোপানতলে
কত প্রাণ হলো বলিদান,
লেখা আছে অশ্রুজলে।।
কত বিপ্লবী বন্ধুর রক্তে রাঙা,
বন্দীশালার ওই শিকল ভাঙ্গা
তাঁরা কি ফিরিবে আজ সুপ্রভাতে
যত তরুণ অরুণ গেছে অস্তাচলে।।
যাঁরা স্বর্গগত তাঁরা এখনও জানেন
স্বর্গের চেয়ে প্রিয় জন্মভূমি
এসো স্বদেশ ব্রতের মহা দীক্ষা লভি
সেই মৃত্যুঞ্জয়ীদের চরণ চুমি।
যাঁরা জীর্ণ জাতির বুকে জাগালো আশা,
মৌল মলিন মুখে জোগালো ভাষা
আজি রক্ত কমলে গাঁথা মাল্যখানি
বিজয় লক্ষ্মী দেবে তাঁদেরই গলে।।

[গানটি লিখেছেন মোহিনী চৌধুরী এবং সুর করেছেন কৃষ্ণ চন্দ্র দে]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

জন্ম আমার ধন্য হলো মাগো
এমন করে আকুল হয়ে
আমায় তুমি ডাকো।।
তোমার কথায় হাসতে পারি
তোমার কথায় কাঁদতে পারি
মরতে পারি তোমার বুকে
বুকে যদি রাখো মাগো।।
তোমার কথায় কথা বলি
পাখির গানের মতো
তোমার দেখায় বিশ্ব দেখি
বর্ণ কত শত।
তুমি আমার—খেলার পুতুল
আমার পাশে থাক মাগো।।
তোমার প্রেমে তোমার গন্ধে
পরান ভরে রাখি
এইতো আমার জীবন-মরণ
এমনি যেন থাকি।
বুকে তোমার—ঘুমিয়ে গেলে
জাগিয়ে দিও নাকো মাগো।।

[গানটির গীতিকার নয়ীম গহর ও গেয়েছেন সাবিনা ইয়াসমীন]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

ও ভাই খাঁটি সোনার চেয়ে খাঁটি
আমার দেশের মাটি।।
এই দেশেরই মাটি জলে,
এই দেশেরই ফুলে-ফলে,
তৃষ্ণা মিটাই, মিটাই ক্ষুধা
পিয়ে এরই দুধের বাটি।।
এই মাটি এই কাদা মেখে,
এই দেশেরই আচার দেখে,
সভ্য হলো নিখিল ভুবন, দিব্য পরিপাটি।।
এই দেশেরই ধুলায় পড়ি
মানিক যায়রে গড়াগড়ি
বিশ্বে সবার ঘুম ভাঙানো
এই দেশেরই জীবন কাঠি।।

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

সবকটা জানালা খুলে দাওনা
আমি গাইব গাইব বিজয়েরই গান
ওরা আসবে চুপি চুপি যারা এই দেশটাকে
ভালোবেসে দিয়ে গেছে প্রাণ।।
চোখ থেকে মুছে ফেল অশ্রুটুকু
এমন খুশির দিনে কাঁদতে নেই
হারানো স্মৃতি বেদনাতে
একাকার করে মন ডাক দিলে
ওরা আসবে চুপি চুপি যারা এই দেশটাকে
কেউ যেন ভুল করে গেয়নাক
মন ভাঙা গান।।
আজ আমি সারানিশি থাকব জেগে
ঘরের আলো সব আঁধার করে।
তৈরি রাখব আতর গোলাপ
এদেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে
ওরা আসবে চুপি চুপি যারা এই দেশটাকে
কেউ যেন ভুল করে গেয়নাক
মন ভাঙা গান।।

[গানটি গেয়েছেন সাবিনা ইয়াসমীন]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

আমি বাংলায় গান গাই,
আমি বাংলার গান গাই,
আমি আমার আমিকে চিরদিন
এই বাংলায় খুঁজে পাই।
আমি বাংলায় দেখি স্বপ্ন,
আমি বাংলায় বাঁধি সুর,
আমি এই বাংলার মায়াভরা পথে
হেঁটেছি এতটা দূর।
বাংলা আমার জীবনানন্দ,
বাংলা আমার সুখ,
আমি একবার দেখি বারবার দেখি
দেখি বাংলার মুখ।।
আমি বাংলায় কথা কই,
আমি বাংলার কথা কই,
আমি বাংলায় ভাসি, বাংলায় হাসি,
বাংলায় জেগে রই।
আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে,
করি বাংলায় হাহাকার,
আমি সব দেখে-শুনে ক্ষেপে গিয়ে করি
বাংলায় চিৎকার।
বাংলা আমার দৃপ্ত শ্লোগান,
ক্ষিপ্ত তীর-ধনুক,
আমি একবার দেখি, বারবার দেখি
দেখি বাংলার মুখ।।
আমি বাংলায় ভালোবাসি,
আমি বাংলাকে ভালোবাসি,
আমি তারই হাত ধরে সারা পৃথিবীর
মানুষের কাছে আসি।
আমি যা কিছু মহান
বরণ করেছি বিনিদ্র শ্রদ্ধায়
মিশে তের নদী সাত সাগরের জল
গঙ্গায় পদ্মায়।
বাংলা আমার তৃষ্ণার জল,
দৃপ্ত শেষ চুমুক।
আমি একবার দেখি, বারবার দেখি,
দেখি বাংলার মুখ।।

[গানটি গেয়েছেন প্রতুল মুখার্জী]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

মাগো তোমার কোলে জন্মে
   পেয়েছি সুখের আলো
তাইতো তোমায় জীবন দিয়েও
   তাই বেসেছি ভালো।।
তোমার বুকের সুধায় আমি
স্বপ্ন দেখি মুগ্ধ চোখে
শিশির কণা পাত্র ছুঁয়ে
   প্রাণের পরশ পেলো।।
এখানে পদ্মা মেঘনা যমুনা
ফল্গু ধারা বয়ে চলে যায়
কুলু কুলু ঢেউ কলরোলে নাচে
   বাংলা মায়ের কোলে।।

[গানটির কথা ও সুর দিয়েছেন এ.এফ.এম. আলিমউজ্জামান]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

চল চল চল
ঊর্দ্ধ গগনে বাজে মাদল
নিম্নে উতলা ধরণী তল
অরুণ প্রাতের তরুণ দল
    চলরে চলরে চল।।
ঊষার দুয়ারে হানি আঘাত
আমরা আনিব রাঙা প্রভাত
আমরা টুটিব তিমির রাত
বাঁধার বিন্ধ্যা চল।।
নব নবীনের গাহিয়া গান
সজীব করিব মহাশশ্মান
আমরা দানিব নতুন প্রাণ
    বাহুতে নবীন বল।।
চলরে নওজোয়ান, শোনরে পাতিয়া কান
মৃত্যু তোরণ দুয়ারে দুয়ারে জীবনের আহ্বান
ভাঙ্গরে ভাঙ্গ আগল
    চলরে চলরে চল।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

ধনধান্য পুষ্প ভরা আমাদের এই বসুন্ধরা
তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল দেশের সেরা
ও সে স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে যে স্মৃতি দিয়ে ঘেরা
এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি
সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি
সে যে আমার জন্মভূমি, সে যে আমার জন্মভূমি।।
পুষ্পে পুষ্পে ভরা শাখি কুঞ্জে কুঞ্জে গাহে পাখি
গুঞ্জরিয়া আসে অলি পুঞ্জে পুঞ্জে ধেয়ে
তারা ফুলের ওপর ঘুমিয়ে পড়ে ফুলের মধু খেয়ে।।
ভায়ের মায়ের এত স্নেহ কোথায় গেলে পাবে কেহ
ওমা তোমার চরণ দুটি বক্ষে আমার ধরি
আমার এই দেশেতে জন্ম যেন এই দেশেতে মরি।।

[গানটি লিখেছেন দ্বিজেন্দ্রলাল রায়]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

এই পদ্মা, এই মেঘনা,
  এই যমুনা সুরমা নদী তটে।
আমার রাখাল মন, গান গেয়ে যায়
  এই আমার দেশ, এই আমার প্রেম
আনন্দ বেদনায়, মিলন বিরহ সংকটে।।
এই মধুমতি ধানসিঁড়ি নদীর তীরে
নিজেকে হারিয়ে যেন পাই ফিরে ফিরে
এক নীল ঢেউ কবিতার প্রচ্ছদ পটে।।
এই পদ্মা, এই মেঘনা,
এই হাজারো নদীর অববাহিকায়।
এখানে রমণীগুলো নদীর মতন
নদী ও রমণীগুলো শুধু কথা কয়।।
এই অবারিত সবুজের প্রান্ত ছুঁয়ে
নির্ভয় নীলাকাশ রয়েছে নুয়ে
যেন হৃদয়ের ভালোবাসা হৃদয়ে ফুটে।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

মাঝি নাও ছাইরা দে
ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে
গা-রে মাঝি গা কোন গান।।
একদিন তোর নাও মাঝি
ভাসবে না রে নীল নদীতে রে
সেদিন তোর গান মাঝি
শুনবে না কেউ গাইবে না বলে-
ও মাঝি রে, ও কলের নৌকা কাইরা নিবে সুর।।
যন্ত্রের নাও ধোঁয়া ছাইরা
আঁধার করল নীল আকাশটারে, ও মাঝি রে-
সেদিন তোর নাও মাঝি
শূণ্য হয়ে থাকবে রে পরে-
ও মাঝি রে-
ও চল রে মাঝি যাইরে বহু দূর।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

প্রথম বাংলাদেশ, আমার শেষ বাংলাদেশ,
জীবন বাংলাদেশ আমার মরণ বাংলাদেশ,
বাংলাদেশ, বাংলাদেশ, বাংলাদেশ।।
আমার আঙিনায় ছড়ানো বিছানো,
   সোনা সোনা ধুলিকণা,
মাটির মমতায় ঘাস ফসলে,
সবুজের আল্পনা,
আমার তাতেই হয়েছে
  স্বপ্নের বীজবোনা।।
অরূপ জোছনায়, সাজানো রাঙানো
   ঝিলিমিলি চাঁদ তলে
নিবিড় মমরায়, পিউ পাপিয়া
   হৃদয়ের দ্বার খোলে,
আমি তাতেই রেখেছি
  স্বপ্নের দ্বীপ জ্বেলে।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

সূর্যদয়ে তুমি, সূর্যাস্তেও তুমি
   ও আমার বাংলাদেশ, প্রিয় জন্মভূমি।।
জলসিঁড়ি নদীর তীরে,
   তোর খুশির কাঁকন যেন বাজে
ও—কাশবনে ফুলে ফুলে,
   তোর মধুর বাসর যেন সাজে
তোর একতারা হায়,
   করে বাউল আমায় সুরে সুরে।।
আঁকাবাঁকা মেঠো পথে
   তোর রাখাল হৃদয় যেন হাসে
ও—পদ্ম পাতা, দীঘির ঝিলে
   তোর সোনার স্বপন যেন ভাসে
তোর এই আঙিনায়
   ধরে রাখিস আমায় চিরতরে।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

একতারা তুই দেশের কথা
   বলরে এবার বল
আমাকে তুই বাউল করে, সঙ্গে নিয়ে চল
জীবন মরণ মাঝে, তোর সুর যেন বাজে।।
একটি কথা আমি শুধু বলে যেতে চাই
বাংলা আমার সুখে-দুখে হয় যেন গো ঠাই রে।।
একটি গান আমি শুধু গেয়ে যেতে চাই,
বাংলা আমার, আমি যে তার
   আর তো চাওয়া নাই রে।।
প্রাণের প্রিয় তুমি, মোর সাধের জন্মভূমি
     তোমায় বরণ করে
        যেন যেতে পারি মরে।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো, একুশে ফেব্রুয়ারী
আমি কি ভুলিতে পারি।।
ছেলে হারা শত মায়ের অশ্রু
গড়ায়ে ফেব্রুয়ারী।।
আমার সোনার দেশের
রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারী।।
জাগো নাগিনীরা জাগো জাগো
জাগো কাল বোশেখীরা
শিশু হত্যার বিক্ষোভে আজ
কাপুক বসুন্ধরা।।

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

ব্যারিকেড বেয়নেট বেড়াজাল
পাকে পাকে তড়পায় সমকাল
মারীভয় সংশয় ত্রাসে
অতিকায় অজগর গ্রাসে
মানুষের কলিজা
    ছেঁড়ে খোঁড়ে খাবলায়
       খাবলায় নরপাল।

ঘুম নয় এই খাঁটি ক্রান্তি
ভাঙো ভাই খোঁয়ারির ক্লান্তি
হালখাতা বৈশাখে
শিস দেয় সৈনিক হরিয়াল।।

দুর্বার বন্যার তোড়জোড়
মুখরিত করে এই রাঙা ভোর
নায়ে ঠেলা মারো হেঁই এইবার
    তোলো পাল তোলো পাল ধরো হাল।।

কড়া হাতে ধরে আছি কবিতার
হাতিয়ার কলমের তলোয়ার
সংগ্রামী ব্যালাডে
       ডাক দেয় কমরেড কবিয়াল।।

[গানটি লিখেছেন আবু বকর সিদ্দিক এবং সুর ও স্বরলিপি করেছেন সাধন সরকার]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

পূর্ব দিগন্তে সূর্য উঠেছে
   রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল
জোয়ার এসেছে জন-সমুদ্রে
   রক্ত লাল, রক্ত লাল, রক্ত লাল।।
বাঁধন ছেঁড়ার হয়েছে কাল,
   হয়েছে কাল, হয়েছে কাল।।

শোষণের দিন শেষ হয়ে আসে
অত্যাচারীরা কাঁপে আজ ত্রাসে
রক্তে আগুন প্রতিরোধ গড়ে
   নয়া বাংলার নয়া শ্মশান, নয়া শ্মশান।

আর দেরি নয় উড়াও নিশান
রক্তে বাজুক প্রলয় বিষাণ
বিদ্যুৎ গতি হউক অভিযান
ছিঁড়ে ফেলো সব শত্রু জাল, শত্রু জাল।

[গানটি লিখেছেন গোবিন্দ হালদার এবং গেয়েছেন সমর দাস]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

আমি এক বাংলার মুক্তি সেনা
মৃত্যুর পথ চলিতে
কভু করি না ভয় করি না।
মৃত্যুর পায়ে দলে চলি হাসিতে।
দুঃসহ জীবনের রাহু মুক্তি
প্রাণে মেখে সূর্যের নবশক্তি
বজ্র শপথে নেমেছি যুদ্ধে
বাঙালির জয় হবে নিশ্চয়
চলেছে এ দুর্জয় মুক্তির পথে।
বাংলার তরে আমি সঁপেছি এ মন
নেই জ্বালা হাহাকার নেই হুতাশন।
রক্তে রাঙা আজ বিপ্লবী মন
ক্ষমা নেই বাংলার গণদুশমন
বজ্রের তূর্যের মন্ত্রে
মারবো এবার মরবো না আর
চলেছি যে শত্রুকে পায়ে দলিতে।

[গানটি লিখেছেন নেওয়াজিস হোসেন, যিনি ১৯৭১ সালে ১৫ বছরের কিশোর ছিলেন]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

এক সাগর রক্তের বিনিময়ে
বাংলার স্বাধীনতা আনলে যারা
    আমরা তোমাদের ভুলব না।
দুঃসহ এ বেদনার কণ্টক পথ বেয়ে
শোষণের নাগপাশ ছিঁড়লে যারা
    আমরা তোমাদের ভুলব না।
যুগের নিষ্ঠুর বন্ধন হতে
মুক্তির এ বারতা আনলে যারা
    আমরা তোমাদের ভুলব না।
কৃষাণ-কৃষাণীর গানে গানে
পদ্মা-মেঘনার কলতানে
    বাউলের একতারাতে
    আনন্দ ঝংকারে
    তোমাদের নাম ঝংকৃত হবে।
    নতুন স্বদেশ গড়ার পথে
    তোমরা চিরদিন দিশারী রবে।
       আমরা তোমাদের ভুলব না।।

[গানটি লিখেছেন গোবিন্দ হালদার এবং গেয়েছেন স্বপ্না রায়]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

ছোটদের বড়দের সকলের
গরিবের নিঃস্বের ফকিরের
আমার এ দেশ সব মানুষের, সব মানুষের।।
নেই ভেদাভেদ হেথা চাষা আর চামারে,
নেই ভেদাভেদ হেথা কুলি আর কামারে।
হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান, দেশ মাতা এক সকলের।
লাঙলের সাথে আজ চাকা ঘুরে এক তালে
এক হয়ে মিশে গেছি আমারা সে যে কোন প্রাণে।
মসজিদ, মন্দির, গীর্জার আবাহনে।
     বাণী শুনি একই সুরের।
চাষাদের মজুরের ফকিরের
ফকিরের নিঃস্বের গরিবের
আমার এ দেশ, সব মানুষের, সব মানুষের।
বড়দের ছোটদের সকলের
আমার এ দেশ সব মানুষের।

[গানটি গেয়েছেন রথীন্দ্রনাথ রায়]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

তারা এ দেশের সবুজ ধানের শীষে
     চিরদিন আছে মিশে।।
উদাসী মাঝির গানে
     বাউলের ভীরু প্রাণে
দোয়েল শ্যামার শিসে
     চিরদিন আছে মিশে।।
গুরু গুরু মেঘে কাদের কন্ঠ শুনি
     রক্তে তখন নেচে ওঠে কত ফাল্গুনী
সকল পথের বাঁকে
     তারা আমাদের ডাকে
দিগন্তে দিশে দিশে
     চিরদিন আছে মিশে।।
উদাসী মাঝির গানে
     তারা আমাদের টানে
দোয়েল শ্যামার শিসে
     চিরদিন আছে মিশে।।

[গানটি লিখেছেন ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

তীরহারা এই ঢেউয়ের সাগর,
   পাড়ি দিব রে
আমরা ক’জন নবীন মাঝি
   হাল ধরেছি রে।।
জীবন কাটি যুদ্ধ করি
প্রাণের মায়া সাঙ্গ করি
জীবনের সাধ নাহি পাই।।
   ঘর-বাড়ির ঠিকানা নাই
   দিন-রাত্রি জানা নাই
   চলার ঠিকানা সঠিক নাই।।
জানি শুধু চলতে হবে
এ তরী বাইতে হবে
আমি যে সাগর মাঝি রে।
জীবনের রঙে মনকে টানে না
ফুলের ঐ গন্ধ কেমন জানি না
জ্যোৎস্নার দৃশ্য চোখে পড়ে না
তারাও তো ভুলে কভু ডাকে না।।
বৈশাখেরই রুদ্র ঝড়ে
আকাশ যখন ভেঙে পড়ে
ছেঁড়া পাল আরও ছেঁড়ে যায়।।
হাতছানি দেয় বিদ্যুৎ আমায়
হঠাৎ কে যে শঙ্খ শোনায়
দেখি ঐ ভোরের পাখি গায়।।
তবু তরী বাইতে হবে
খেয়া পারে নিতে হবে
যতই ঝড় উঠুক সাগরে।
তীরহারা এই ঢেউয়ের
সাগর পারি দিব রে।।

[গানটি গেয়েছেন আপেল মাহমুদ]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

জনতার সংগ্রাম চলবেই
আমাদের সংগ্রাম চলবেই
জনতার সংগ্রাম চলবেই।।

হতমানে অপমানে নয়, সুকগ সম্মানে
বাঁচবার অধিকার কাড়তে
দাস্যের নির্মোক কাড়তে
অগিণিত মানুষের প্রাণপণ যুদ্ধ
চলবেই চলবেই,
জনতার সংগ্রাম চলবেই।।

প্রতারণা প্রলোভন প্রলেপে
হোক না আঁধার নিশ্চিদ্র
আমরা তো সময়ের সারথী
নিশিদিন কাটাবো বিনিদ্র।

দিয়েছি তো শাস্তি আরও দেবো স্বস্তি
দিয়েছি তো সম্ভ্রম আরো দেবো অস্থি
প্রয়োজন হলে দেবো এক নদী রক্ত।

হোক না পথের বাধা প্রস্তর শক্ত
অবিরাম যাত্রার চির সংঘর্ষে
একদিন সে পাহাড় টলবেই
চলবেই চলবেই
জনতার সংগ্রাম চলবেই
আমাদের সংগ্রাম চলবেই।।

হতে পারি পথভ্রম আরও বিধ্বস্ত
ধিকৃত নয় তবু চিত্তে
আশায় তো সুস্থির লক্ষ্যের যাত্রী
চলবার আবেগেই তৃপ্ত।

আমাদের পথরেখা দুস্তর দুর্গম
সাথে তবু অগণিত সঙ্গী
বেদনার কোটি কোটি অংশী
আমাদের চোখে চোখে লেলিহান অগ্নি
সকল বিরোধ বিধ্বংসী।

এই কালো রাত্রির সুকঠিন অর্গল
কোনদিন আমরা যে ভাঙবোই
মুক্ত প্রাণের সাড়া জানবোই।
আমাদের শপথের প্রদীপ্ত স্বাক্ষরে
নুতন অগ্নিশিখা জ্বলবেই
জনতার সংগ্রাম চলবেই
আমাদের সংগ্রাম চলবেই।

[গানটি লিখেছেন সিকান্‌দার আবু জাফর]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

সোনা সোনা সোনা
     লোকে বলে সোনা
সোনা নয় তত খাঁটি
বলো যত খাঁটি
তার চেয়ে খাঁটি বাংলাদেশের মাটি রে
     আমার জন্মভূমির মাটি।।
ধন জন মন যত ধন দুনিয়াতে
হয় কি তুলনা বাংলার কারো সাথে
কত মার ধন মানিক রতন
কত জ্ঞানী গুণী কত মহাজন
এনেছি আলোর সূর্য এখানে
আঁধারের পথ পাতি রে
আমার বাংলাদেশের মাটি
     আমার জন্মভূমির মাটি।।

এই মাটির তলে ঘুমায়েছে অবিরাম
রফিক, শফিক, বরকত কত নাম
কত তিতুমীর, কত ঈশা খান
দিয়েছে জীবন, দেয় নি তো মান।।
     রক্তশয্যা পাতিয়া এখানে
     ঘুমায়েছে পরিপাটি রে
আমার বাংলাদেশের মাটি
     আমার জন্মভূমির মাটি।

[গানটি লিখেছেন আব্দুল লতিফ এবং গেয়েছেন শাহনাজ রহমতুল্লাহ]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি
মোরা একটি সুখের হাসির জন্য অস্ত্র ধরি।।

যে মাটির চির মমতা আমার অঙ্গে মাখা
যার নদী জলে ফুলে ফুলে মোর স্বপ্ন আঁকা।
যে নদীর নীল অম্বরে মোর মেলছে পাখা
সারাটি জীবন সে মাটির গানে অস্ত্র ধরি।।

নতুন একটি কবিতা লিখতে যুদ্ধ করি―
মোরা নতুন একটি গানের জন্য যুদ্ধ করি
মোরা একখানা ভালো ছবির জন্য যুদ্ধ করি
মোরা সারা বিশ্বের শান্তি বাঁচাতে আজকে লড়ি।।
যে নারীর মধু প্রেমেতে আমার রক্ত দোলে
যে শিশুর কান্না হাসিতে আমার বিশ্ব ভোলে
যে গৃহ কপোত সুখ স্বর্গের দুয়ার খুঁজে
সেই শান্তির শিবির বাঁচাতে শপথ করি।।

মোরা একটি ফুলকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি
মোরা একটি সুখের হাসির জন্য আজি অস্ত্র ধরি।।

[গানটি লিখেছেন গোবিন্দ হালদার এবং গেয়েছেন আপেল মাহমুদ]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

নোঙর তোল তোল সময় যে হোল হোল
     হাওয়ার বুকে নৌকা এবার
     জোয়ারে ভাসিয়ে দাও
শক্ত মুঠির বাঁধনে বজরা বাঁধিয়া নাও
সম্মুখে এবার দৃষ্টি তোমার পেছনের কথা ভোল
     দূর দিগন্তে সূর্য রথে
     দৃষ্টি রেখেছে স্থির
     সবুজ আশার স্বপ্নেরা আজ
     নয়নে করেছে ভিড়
     হৃদয়ে তোমার মুক্তি আলো
     আলোর দুয়ার খোলো।

[গানটির কথা লিখেছেন নঈম গওহর]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

শোনো, একটি মুজিবরের থেকে
লক্ষ মুজিবরের কন্ঠস্বরের ধ্বনি, প্রতিধ্বনি
আকাশে বাতাসে ওঠে রণি।
বাংলাদেশ আমার বাংলাদেশ।।
সেই সবুজের বুক চেরা মেঠো পথে,
আবার এসে ফিরে যাবো আমার
হারানো বাংলাকে আবার তো ফিরে পাবো।
শিল্পে কাব্যে কোথায় আছে হায় রে
এমন সোনার দেশ।
বিশ্বকবির সোনার বাংলা, নজরুলের বাংলাদেশ,
জীবনানন্দের রূপসী বাংলা
রূপের যে তার নেইকো শেষ, বাংলাদেশ।
‘জয় বাংলা’ বলতে মনরে আমার এখন কেন ভাবো,
আমার হারানো বাংলাকে আবার তো ফিরে পাবো,
অন্ধকারে পুবাকাশে উঠবে আবার দিনমণি।।

[গানটির কথা লিখেছেন গৌরীপ্রসন্ন মজুমদার এবং গেয়েছেন আংশুমান রায়]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

বিচারপতি তোমার বিচার করবে যারা
আজ জেগেছে এই জনতা, এই জনতা।।
তোমার গুলির, তোমার ফাঁসির,
তোমার কারাগারের পেষণ শুধবে তারা
ও জনতা এই জনতা এই জনতা।।
তোমার সভায় আমীর যারা,
ফাঁসির কাঠে ঝুলবে তারা।।
তোমার রাজা মহারাজা,
করজোরে মাগবে বিচার।।
ঠিক যেন তা এই জনতা।
তারা নতুন প্রাতে প্রাণ পেয়েছে, প্রাণ পেয়েছে।
তারা ক্ষুদিরামের রক্তে ভিজে প্রাণ পেয়েছে।।
তারা জালিয়ানের রক্তস্নানে প্রাণ পেয়েছে।
তারা ফাঁসির কাঠে জীবন দিয়ে
    প্রাণ পেয়েছে, প্রাণ পেয়েছে।।
তারা গুলির ঘায়ে কলজে ছিঁড়ে প্রাণ পেয়েছে,
    প্রাণ পেয়েছে এই জনতা।
নিঃস্ব যারা সর্বহারা তোমার বিচারে।
সেই নিপীড়িত জনগণের পায়ের ধারে।।
    ক্ষমা তোমায় চাইতে হবে
    নামিয়ে মাথা হে বিধাতা।।
    রক্ত দিয়ে শুধতে হবে।
    নামিয়ে মাথা হে বিধাতা।।
         ঠিক যেন তা এই জনতা।
বিচারপতি তোমার বিচার করবে যারা
আজ জেগেছে এই জনতা, এই জনতা।।

[গানটির কথা লিখেছেন সলিল চৌধুরী]

{গানটি পড়তে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

সালাম সালাম হাজার সালাম
   সকল শহীদ স্মরণে,
আমার হৃদয় রেখে যেতে চাই
   তাদের স্মৃতির চরণে।।

মায়ের ভাষায় কথা বলাতে
স্বাধীন আশায় পথ চলাতে
হাসিমুখে যারা দিয়ে গেল প্রাণ
সেই স্মৃতি নিয়ে গেয়ে যাই গান
   তাদের বিজয় মরণে,
আমার হৃদয় রেখে যেতে চাই
   তাদের স্মৃতির চরণে।।

ভাইয়ের বুকের রক্তে আজি
রক্ত মশাল জ্বলে দিকে দিকে
সংগ্রামী আজ মহাজনতা
কন্ঠে তাদের নব বারতা
   শহীদ ভাইয়ের স্মরণে,
আমার হৃদয় রেখে যেতে চাই
   তাদের স্মৃতির চরণে।।

বাংলাদেশের লাখো বাঙালি
জয়ের নেশায় আনে ফুলের ডালি
আলোর দেয়ালি ঘরে ঘরে জ্বালি
ঘুচিয়ে মনের আঁধার কালি।
শহীদ স্মৃতি বরণে,
আমার হৃদয় রেখে যেতে চাই
তাদের স্মৃতির চরণে।।

[গানটির কথা লিখেছেন ফজল-এ-খোদা আর গানটি প্রথমে গেয়েছিলেন আব্দুল জব্বার।]

{গানটি না পড়া গেলে বিকল্প লিংকে যান}
{If you can’t see it, click here}

জয় বাংলা বাংলার জয়।।
হবে হবে হবে, হবে নিশ্চয়
কোটি প্রাণ এক সাথে জেগেছে অন্ধরাতে
নতুন সূর্য ওঠার এই তো সময়।।
বাংলার প্রতি ঘর ভরে দিতে
     চাই মোরা অন্নে।।
আমাদের রক্তে টগবগ দুলছে
     মুক্তির রিক্ত তারুণ্যে।।

     নেই ― ভয়
হস্ত হউক রক্তের প্রখ্যাত ক্ষয়।
আমি করি না করি না করি না ভয়।
অশোকের ছায় যেন রাখালের বাঁশরী
হয়ে গেছে একেবারে স্তব্ধ।।

চারিদিকে শুনি আজ নিদারুণ হাহাকার
     আর ঐ কান্নার শব্দ।।
শাসনের নামে চলে শোষণের
     সুকঠিন যন্ত্র।।
শব্দের হুঙ্কারে শৃঙ্খল ভাঙতে
     সংগ্রামী জনতা অতন্দ্র।

     আর ― নয়।
তিলেতিলে মানুষের এই পরাজয়।।
আমি করি না করি না করি না ভয়।
জয় বাংলা বাংলার জয়।।

[গানটি গাজী মযহারুল আনোয়ারের রচনা এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সূচনা পর্যায়ে সকল অধিবেশনের প্রারম্ভে ও সমাপ্তিতে সূচক ধ্বনি হিসেবে প্রচারিত হয়েছে।]

{গানটি পড়া না গেলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}

বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত “আমার সোনার বাংলা”র গীতিকবিতা:

আমার সোনার বাংলা
আমি তোমায় ভালোবাসি।
চিরদিন তোমার আকাশ
চিরদিন তোমার আকাশ, তোমার বাতাস
আমার প্রাণে বাজায় বাঁশি।

ও মা, ফাগুনে তোর আমের বনে
ঘ্রাণে পাগল করে–
(মরি হায়, হায় রে)
ও মা, অঘ্রাণে তোর ভরা খেতে,
(আমি) কি দেখেছি মধুর হাসি।।

কী শোভা, কী ছায়া গো,
কী স্নেহ, কী মায়া গো–
কী আঁচল বিছায়েছ
বটের মূলে, নদীর কূলে কূলে।।

মা তোর মুখের বাণী
আমার কানে লাগে
সুধার মতো–
(মরি হায়, হায় রে)
মা, তোর বদনখানি মলিন হলে
আমি নয়ন জলে ভাসি।।

{এটি দেখতে না পারলে বিকল্প লিংক}
{If you can’t read it, click here}