অনির্দিষ্ট


এটি আমাদের গুগল ওয়েবমাস্টার ভেরিফিকেশন পোস্ট।

য়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

ঢ়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

ড়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


হঠাৎ বৃষ্টি
হরে কৃষ্ণ নাম
হলুদিয়া পাখি
হয়ত তোমারই জন্য
হারিয়ে যেতে যেতে
হায় রে আমার মন
হায়রে কপাল মন্দ
হে পার্থসারথী! বাজাও

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


সকালের আলো
সব কথা বলা
সব দুষ্টু ছেলেরাই
সরকারী কর্মচারী
সহজ মানুষ
সবাই তো সুখী
সাঁইয়া
সাঁঝ ঝরা লগনে আজ
সাত ভাই চম্পা
সারে যাঁহা সে আচ্ছা
সালাম সালাম হাজার সালাম
সুখে থাকো ও
সুরের আকাশে তুমি
সূর্যদয়ে তুমি সূর্যাস্তেও তুমি
সে আমার ছোট বোন
সে যে আমার হোক
সোনা বন্ধে আমারে
সোনার ময়না পাখি
সোনার হিন্দোলে কিশোর-কিশোরী
সোনালী প্রান্তরে
সোনালী রোদ্দুরে
সোনা সোনা সোনা

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ষোলই ডিসেম্বর

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


শঙ্খ বাজিয়ে মাকে
শশীকান্ত
শেষ বলে কিছু নেই
শুকনো পাতার নুপূর
শুধু গান গেয়ে
শুধু পথ চেয়ে থাকা
শুভ্র সমুজ্জ্বল, হে চির
শুয়াচান পাখি
শূণ্য এ বুকে
শোনো, একটি মুজিবরের থেকে
শোনো বন্ধু শোনো
শ্যামলা বরণ বাংলা মায়ের

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


লাইলী তোমার এসেছে
লেখাপড়াটা শিকেয় তুলে
লোকে বলে বলেরে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


রক্ত দিয়ে নাম
রঙ্গিয়া রঙ্গে আমি
রজনী হইসনা অবসান
রঞ্জনা
রাঙা মাটির রঙে
রাসুলকে চিনলে পরে
রিমঝিম এ ধারাতে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


যখন সময় থমকে
যদিও রজনী পোহালো
যদি কাগজে লেখ নাম
যদি ভাব এ তো
যদি ভুল করেই
যদি হই চোরকাটা
যাও পাখি বল
যা পেয়েছি আমি
যাবার বেলা পিছু
যাবার বেলা ফেলে
যারে যাবি যদি যা
যারে হাত দিয়ে
যায় ঝিলমিল ঝিলমিল
যেখানে সাঁর বারামখানা
যে জন প্রেমের
যোগাসনে হে মহাযোগী

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


মঙ্গল দীপ জ্বেলে
মদীনায় রাছুল নামে
মন আমার দেহ
মন যদি ভেঙে
মনে আগুন জ্বলে
মনে পড়ে আজ সে
মম অন্তর মন্দিরে
মরদ আমায় দরদ
মরিব মরিব সখি
মহাকালের কোলে এসে
মা আমায়
মাগো তোমার কোলে
মাঝি নাও ছাইরা দে
মাধবী মধুপে
মানুষ গুরু নিষ্ঠা
মানুষ ধর মানুষ ভজ
মানুষ মানুষের জন্য
মা মাগো মা
মিলন হবে কত দিনে
মিসেস মুখার্জী
মুক্তির মন্দির সোপানতলে
মোদের এই শিকল
মোদের গরব মোদের আশা
মোমের পুতুল মমীর
মোর প্রিয়া হবে
মোরা আর জনমে
মোরা একটি ফুলকে
মোরা ঝঞ্ঝার মত উদ্দ্যম
মোরে ভালোবাসায় ভুলিও না

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ভজ রাধা-কৃষ্ণ
ভব সাগর তারণ কারণ হে
ভবে কে তাহারে
ভরিয়া প্রাণ শুনিতেছি
ভয়
ভালোবাসা যত বড়
ভীরু এ মনের কলি
ভুল না মন
ভুল সবই ভুল

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


বউ কথা কও
বঙ্গ আমার জননী
বধূয়া
বন্ধু আজও মনে পড়ে
বন্ধু হতে চেয়ে
বল, বল, বল সবে
বলি ও কালার বাঁশি
বলো রে হায় হায়
বসে আছি ইস্টিশানেতে
বসে আছি পথ চেয়ে
বসন্ত বাতাসে সই গো
বড় আশা করে
বড় একা লাগে
বড় সাধ জাগে
বাউল মন
বাগিচায় বুলবুলি তুই
বাদলা দিনে মনে
বাঁশি শুনে আর কাজ
বাড়ির কাছে আরশী নগর
বাংলাদেশের শিশু মোরা
বাংলার হিন্দু, বাংলার বৌদ্ধ
বিচারপতি তোমার বিচার
বিপীনবাবুর কারণ সুধা
বিমূর্ত এই রাত্রি
বৃদ্ধাশ্রম
বেল ফুল এনে দাও
বেলা গেলো ও ললিতা
ব্যারিকেড বেয়নেট বেড়াজাল
ব্রজ গোপী খেলে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ফাইসা গেছি
ফুলের কানে ভ্রমর
ফুলের জলসায় নীরব

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


পদ্মার ঢেউ রে
পাগলা মনটারে তুই
পাবে সামান্যে কি
পারে কে যাবি নবীর
পাহাড়ের কান্না দেখে
পিচ ঢালা এই
পিরীত করিয়ে পিরীত
পূর্ব দিগন্তে সূর্য
পৃথিবী বদলে গেছে
প্রিয় এমন রাত যেন
প্রেমের মরা জলে
প্রচারণা
প্রজাপতি প্রজাপতি
প্রথম বাংলাদেশ

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


নদীর কূল নাই
নবী না চিনলে
নয়ন ভরা জল গো
নাই টেলিফোন নাইরে পিয়ন
না না না না এমন
নানু দাদু হচ্ছে
নাম রেখেছি বনলতা
নারী হয় লজ্জাতে লাল
নিঝুম সন্ধ্যায়
নিথুয়া পাথারে নেমেছি
নিশা লাগিল রে
নিশিতে যাইও ফুলবনে
নিশি রাত বাঁকা চাঁদ
নীচুর কাছে নীচু
নীল আকাশের নিচে
নূরজাহান! নূরজাহান!
নোঙর তোল তোল

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ধনধান্য পুষ্প ভরা
ধন্য ধন্য বলি তারে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


দাও শৌর্য, দাও ধৈর্য্য
দিবানিশি থাকরে সব
দীপ ছিল শিখা ছিল
দুর্গম গিরি কান্তার মরু
দুটি মন আর
দুপুর গেলো সন্ধ্যা এলো
দূর দ্বীপবাসিনী
দে মা দেখা
দোলে দোদুল দোলে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


তারা এ দেশের
তারে বলে দিও
তিমির-বিদারী অলখ-বিহারী
তিরিশ বছর
তীরহারা এই ঢেউয়ের সাগর
তুমি আরেকবার আসিয়া
তুমি এমনই জাল
তুমি কি দেখেছ কভু
তুমি নাহয় রহিতে
তুমি সুন্দর তাই
তুমি যে আমার
তুমি যে আমার কবিতা
তুমি রামপ্রসাদের মা
তোমাকে চাই
তোমারই বাঁকা ও
তোমারে লেগেছে এত
তোমায় দেখে ছবি
তব বিজয় মুকুট
ত্রিবেণী তীর্থ পথে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ডাক দিয়াছেন দয়াল

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


টুকটুকে লাল রাঙা

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ঝিক ঝিক ঝিক
ঝিলের জলে কে
ঝড় উঠেছে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


জনতার সংগ্রাম চলবেই
জন্ম আমার ধন্য হলো
জন্ম আমার বাংলাদেশে
জন্মিলে মরিতে হবে
জয়তু জয়তু রামকৃষ্ণ
জয় বাংলা বাংলার জয়
জয় রাধে রাধে
জাত গেল জাত গেল
জানালার কোল ঘেষে
জানি না আজ
জীবনপুরের পথিক রে ভাই
জীবনানন্দ হয়ে সংসারে
জীবনের ছককাটা চত্বর
জীবন খাতার প্রতি
জীবন নদীর জোঁয়ার-ভাটায়
জীবনপুরের পথিক রে
জীবন প্রভাতে মরণের সাথে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ছেলে ঘুমালো পাড়া জুড়ালো
ছোটদের বড়দের সকলের

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


চল চল চল
চলো পুণ্যধামে
চানাচুর আছে আমার
চিঠি লিখি তোমার
চিরদিন পুষলাম এক
চিরদিনই তুমি যে আমার
চেনা চেনা লাগে
চোখে চোখে এতো কথা
চোখের আলোয় দেখেছিলেম
চোর

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ঘুম ঘুম চাঁদ
ঘুম পাড়ানী ঘুমের পরী
ঘুমাও রজনীগন্ধা
ঘুমিয়ে গেছে শ্রন্ত

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


গভীরে যাও
গানে ভুবন ভরিয়ে
গানে মোর কোন্‌
গানগুলি মোর আহত
গাড়ি চলে না
গুরু উপায় বলো না

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


খুব জানতে ইচ্ছে
খেলিছ এ বিশ্বলয়ে
খেলিছে জলদেবী
খোদার প্রেমের শরাব

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


কতদিন দেহিনা মায়ের
কফি হাউজের সেই
কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে
কাকলী কুজন আজ
কাছে এসো যদি বলো
কানা বগী বড় হলো
কাঞ্চনজংঘা
কানন গিরি সিন্ধু
কারার ওই লৌহকপাট
কি আনন্দ দিয়ে
কি আশায় বাঁধি
কি মিষ্টি দেখো মিষ্টি
কি যাদু করিলা
কেউ কোনোদিন আমারে
কেউবা বলে ধানের দেশ
কে কথা কয় রে
কেন এ হৃদয়
কে তুমি আমারে ডাকো
কে বিদেশী বন উদাসী’
কে যেন গো

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ওকি গাড়িয়াল ভাই
ওগো নিরুপমা
ওগো সুন্দর অপরূপ
ও আকাশ প্রদীপ
ও ভাই খাঁটি সোনার
ও মেয়ের নাম
ও মন রমজানের ঐ
ও মাঝি নাও
ও মোর বানিয়া
ও যার আপন
ওরে নীল যমুনার জল

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ঐ ঝিনুক ফোঁটা
ঐ দূর দূর-দূরান্তে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


এই কি হলো
এই কূলে আমি
এই কথাটি মনে
এই ছন্দ এ
এই দুনিয়া এখন
এই পূর্ণিমা রাত
এই পৃথিবী যেমন আছে
এই পৃথিবীর পরে
এই পদ্মা, এই মেঘনা
এই বাংলার মাটিতে
এই বেশ ভালো আছি
এই মেঘলা দিনে একলা
এই মন তোমাকে দিলাম
এই যে কাছে
এই যে চাঁদের আলো
এই রাঙামাটির পথে
এই শিকল পরা ছল
এই শ্রাবণ
এই সুন্দর স্বর্ণালী
একাত্তরের মুক্তিসেনার যুদ্ধ
এ কি চঞ্চলতা
একি সোনার আলোয়
একটা গান লিখো
একতারা তুই দেশের কথা
একদিন মা-টি-র ভিতরে
একদিন স্বপ্নের দিন
এক দুই দিন
একবার যদি কেউ
এক সাগর রক্তের বিনিময়ে
এখন অনেক রাত
এখনো সেই বৃন্দাবনে
এখানে দুজনে নির্জনে
এ গানে প্রজাপতি
এগো মইলা
এবার মলে সুতো হব
এ নদী এমন নদী
এলাহী আলমীন
এলো এলো রে
এ শুধু গানের

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


ঈশারায় শিষ দিয়ে

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


আকাশ প্রদীপ জ্বলে
আকাশের হাতে আছে
আগে কি সুন্দর
আগে যদি জানতাম
আচ্ছা কেন মানুষগুলো
আছেন আমার মোক্তার
আজ আছি কাল
আজি মনে মনে জাগে
আজ এই দিনটাকে
আজ চঞ্চল মন
আজ দুজনার দুটি
আজব দেশের ধন্য রাজা
আজ মন চেয়েছে
আমাকে আমার মত
আমার এই জীবন
আমার গরুর গাড়িতে
আমার গানের মালা
আমার গায়ে যত দুঃখ
আমার পূজার ফুল
আমার বুকের মধ্যেখানে
আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো
আমার সারা দেহ
আমার স্বপ্নে দেখা
আমার সোনার বাংলা
আমায় এত রাতে
আমায় গেঁথে দাওনা
আমায় ভাসাইলি রে
আমি এক দুরন্ত
আমি এক বাংলার
আমি কেমন করে
আমি কত দিন কত
আমি চিরতরে দূরে
আমি চেয়ে চেয়ে দেখি
আমি তোমারে ভালোবেসেছি
আমি দূর হতে তোমারে
আমি না লইলাম
আমি বাংলায় গান গাই
আমি মেলা থেকে
আমি যাচ্ছি বাবা
আমি যে কে তোমার
আমি যে জলসাঘরের
আমি যে ভাই যাদুওয়ালা
আমি সরকারী অফিসার
আমি হতে পারিনি
আমরা কচি আমরা কাঁচা
অ্যাম্বিশন
আলীবাবা
আশা ছিল ভালোবাসা ছিল
আষাঢ় শ্রাবণ মানে না
আহা কৃষ্ণ কালো
আয়নাতে ওই মুখ
আর কিছু ধন

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়


অকূল তুফানে নাইয়া
অনাদি কাল হতে
অনেক কথা বলার মাঝে
অঞ্জলি লহ মোর
অন্তবিহীন পথ চলাই
অশ্রু দিয়ে লেখা এ গান
অয়ি চঞ্চল-লীলায়িত-দেহা

<<ফিরে যান গানের অনুক্রমণিকায়

নির্দিষ্ট নয় এমন গানের জন্য এই বিভাগ।