বলি ও কালার বাঁশি, ও শ্যামের বাঁশি,
রাধা বলে আর বেজো না ।
যেই না শ্যামের বাঁশি তুমি,
কালা সেই বা শ্যামের দাসী আমি,
বাঁশি পুরুষের ওই হাতে থাকো,
নারীর বেদন জানো না ।
রাধা বলে আর ডেকো না ।
আমি যখন রাঁধতে বসি,
কালা তখন তুমি বাজাও বাঁশি,
আমি হলুদ দিতে নুন ভুলে যাই,
পোড়া ননদী দেয় গঞ্জনা,
রাধা বলে আর ডেকো না ।
ও বাঁশি রে,
বলি শাশুড়ি ননদীর ঘরে
ও বাঁশি কত কথা কয়,
আমি জলের ছলে জলকে দেখে
মনে লাগে ভয়,
বাঁশি বাজাইও না, অবলার প্রাণে কালি আর দিও না ।
রাত্রি দিন দুপুর কালে, ও কালা বাজাও বাঁশি রাধা রাধা বলে,
আমি ঘুমের ঘরে চমকে উঠি,
কেঁদে ভিজাই বিছানা,
রাধা বলে আর ডেকো না ।
রাধা বলে আর বেজো না,
ও কালার বাঁশি,
রাধা বলে আর ডেকো না ।